খুব একটা সচ্ছল পরিবার থেকে আসিনি আমি।আমার বাবা আর কাকা দুই ভাই একসাথেই আমরা এক বাড়িতে থাকি।ছোটবেলা থেকেই আমার আর কাকিমার সাথে খুব ভালোবাসার সম্পর্ক ছিল, ওকে আমিনতুন মা বলে ডাকতাম। কাকিমাও আমাকে খুব স্নেহ করে, ওর বিয়ে সময় আমার বয়স ছিলো তের বছর।বিয়ের পর আমাদের ঘরে আসার পর থেকে ওর হাতে না খেলে আমার হজম হয় না, ওর কাছ থেকে গল্প না শুনলে আমার ঘুম হত না রাতে। আমার মা বলে নাকি কাকিমা ঘরে আসার পর থেকে আমি নাকি দুষ্টুমিকমিয়ে দিয়েছি। আমি নাকি সবার সামনে এখন ভালো ভাবে থাকি সবসময়।
কিন্তু আমাদের ওখানে পড়বার জন্য খুব একটা ভালো স্কুল ছিল না, তাই আমাকে দুরে হোস্টেলে থেকে পড়াশুনা করবার জন্য পাঠিয়ে দেওয়া হয়,মনে আছে কী রকম ভাবেই না কেঁদেছিলাম আমি,কাকিমাও চোখের জলে আমাকে বিদায় দেয়। বছর পাঁচেক পরে বোর্ডের পরীক্ষা দিয়ে আমি বাড়িতে ফিরে আসি,তখন আমার প্রায়তিন মাসের ছুটি। ফিরে এসে দেখি আমাদেরঅনেক কিছু বদলেগেছে, আরো অনেক জমি জায়গা কিনেছি, মা’কে জিজ্ঞেস করলে বলে,কনি কাকিমা এসে সব কিছু নাকি পালটে ফেলেছে।পিছন থেকে কাকিমার সেই চেনা পুরোনো গলা শুনতে পাই, “ওমা! খোকা কত বড় হয়ে গেছিস রে চিনতেই পারছি না।”
পিছন ফিরতেই দেখি কাকিমার সেই সুন্দর চেহারাখানা, লম্বা ফর্সা দেহ,সারা শরীরে অল্প মাত্র মেদ।কাকিমার চেহারাআগে থেকেই ভালো ছিল আর বিয়ের বেশ কয়েক বছরের পরে আরো যেন খোলতাইহয়েছে। পাপী মন আমার নষ্ট সঙ্গের পালায় পড়ে মনে কালিমা ঢুকে গেছে। কাকিমার দিক থেকে চোখই ফেরাতে পারছিলাম না, এমনিতেই আমাদের বাড়িতে মা কাকিমারা ব্লাউজের তলায় ব্রা পরেন না খুব একটা। পাতলা জামার তলায় যে গোপন ধন লুকিয়ে আছে সেটা আমার নজরএড়ায় নি,বুকের ওপর বেলের মত সাইজের স্তনে যৌবনের চিহ্ন ফুটে উঠেছে। পাতলা পেটে মার্জিত মেদ যেন কোমরটাকে আরও লোভনীয় করেছে। সুগভীর নাভিতে অল্প ঘাম লেগে আছে,ওটা যেন কাকিমার আবেদন আরো বাড়িয়ে তুলেছে, কোমরের নীচে পাছাটা আরো ভারী হয়েছে আগের থেকে।
মন থেকে লালসা মুছে ফেলে, আমি কাকিমা কে প্রনাম করার জন্য ঝুঁকে গেলাম, “থাক থাক বাবা ওকী করছিস?আমি এখন এতটাও বুড়ি হয়ে যাইনি রে!”, আমাকে বারণ করেকাকিমা আমাকে নিজের বুকে জড়িয়ে ধরলো। কাকিমার গায়ের সেই চেনা গন্ধে আমার নাকটা যেন বুজে এলো, ভোর বেলার জুঁই ফুলের গন্ধ। যতই ক্লান্ত থাকুক কাকিমা,ওর গা থেকে সবসময় যেন একটা হালকা সুগন্ধ বেরোতে থাকে। ওনার বুকের মাঝে আমি মাথাগুঁজে দিই, দুই বিশাল বুকের মাঝখানে আমি যেন স্বর্গের সুখ অনুভব করি।
কাকিমার বুকের উপর মনে চাপটা একটু বেশিই দিয়ে ফেলেছিলাম, তবুও কাকী কোনপ্রতিবাদ না করে,ওনার স্তনের মাঝে আমার মুখটাকে যেন একটু ঘসেই দিল বলে আমার মনে হয়। মা বলে, “অনেক আদরযত্ন হল…এবার চল হাতপা ধুয়ে নে…অনেক দূরথেকে তো এলি, তোকে এবার খেতে দেব।”
বলা হয় নি, ছমাস আগে কাকার একটাসুন্দর দেখতে মেয়েও হয়েছে, খুব ফর্সা আর গায়ের রংটা পুরো কাকিমা’র কাছ থেকে পেয়েছে। হাতপা ধুয়ে এলে আমাকে খেতে দেওয়াহল, খাবার সময় দেখিকাকিমা মুন্নিকে নিয়ে এসেছে রান্নাঘরে, মুন্নি মানে কাকার ওই ছোট মেয়েটা। মা আমাকে খেতে দিয়ে আমাকে পাখা দিয়ে বাতাস করে দিতে লাগলো, মা আকাকিমা মিলে আমাকে বিভিন্ন কথা জিজ্ঞেস করতে লাগলো, যেমন শহরে কেমন ছিলাম,ঠিকঠাক খেতে পেতাম কিনা। আমি কথা বলতে গিয়ে মাঝে মাঝেই কাকিমার দিকে আমার নজর চলে যাচ্ছিল, কাকিমাও দেখি আমারদিকে তাকিয়ে বুঝতে পেরে মুচকি হেসে দিচ্ছে মাঝে মাঝে। হঠাৎ করে মুন্নির কান্না শুরু হয়, “আহারে বাচ্চাটার খিদে পেয়েছেরে,সকালে ­ কী খেতে দাওনি ছোট বউ?”, আমার মা কাকিমাকে জিজ্ঞেসকরে।
“না দিদি,খেতে তো দিয়েছিলাম,কিন্ ­তু এমনিতে মেয়েটার খিদে কম, তাই খুব অল্পই খাওয়াতে হয় একে।”
এই বলে কাকিমা ব্লাউজের বোতামগুলো একের পর খুলে মেয়েটার মুখে স্তনের বোঁটাখানা গুঁজে দেয়।ভগবানের কৃপায় ওই মনোরম দৃশ্যখানা আমার নজর এড়ায় নি, কাকিমা যখন বোতাম খুলে দিচ্ছিল,তখনই আমি আড়চোখে কাকিমার মাইয়ের উপর নজর বুলিয়ে নিয়েছি।ফর্সা,ন ­াদু� �� নুদুস মাইখানা, যেন পুরো একটা রসালো বাতাপী।ভরন্ত যৌবনের চিহ্ন গোটা স্তনটাতে, মসলিনের মত মসৃণত্বক। ভগবান তিল তিল যত্ন নিয়েবানিয়েছে কাকিমাকে, স্তনের উপর বাড়তি নজর দিয়েছে,ছোট একটা পাহাড়ের মত মাইখানা। কাকিমার দুধের দিকে হাঁ করে তাকিয়ে আছি দেখে, কাকিমা একটু যেন কেশে জানান দেয় আমাকে, আমিও লজ্জা পেয়ে চোখ সরিয়ে ওরমাইয়ের থেকে। মুখ নামিয়ে আমি আবার খেতে শুরু করি, তবুও চোদু পাব্লিক আমি, আবার নজর চলে যায় কাকিমার বুকের দিকে। অবাক হয়ে তাকিয়ে দেখি, কাকিমা আবার বুকের থেকেআঁচল সরিয়ে দিয়েছে, পুরো উদলা বুকটাযে আমার সামনে মেলে ধরেছে কাকিমা, যৌবনের পসরা ঢেলে তুলেছে আমার চোখের সামনে। কাকিমা জানে মাই ওর মাইয়ের দিকে তাকিয়ে আছি হাঁ করে, তবুও নিজের স্তনখানা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখে না আবার।কাকিমা অন্য দিকে মুখ করে নিজেরডবকা দেহের সেরা জিনিসটা আমাকে যেন উপহার দিয়েছে। আমি হাঁ করেপুরো দৃশ্যের মজা নিতে থাকি, মা ততক্ষনে পাশের ঘরে চলে গেছে, আমার আর কাকিমা ছাড়া রান্নাঘরে আর কেউ নেই। মুন্নিরও ততক্ষনে খিদে মিটে গেছে, কাকিমার চুচী থেকে মুখ সরিয়ে ঘুমিয়ে পড়েছে, কাকিমা দুধটা মুন্নীর মুখ থেকে বের করেএনে, স্তনবৃন্তটাকে ধরে হালকা করে মালিশ করে মাইয়ের ডগায় লেগে থাকা দুধের বিন্দুটাকে আঙুলে করে এনে নিজের ঠোঁটে রাখে, তারপর লাল জিভ দিয়ে ওই দুধের ফোঁটাটাকে চেটে নিয়ে নেয়। ততক্ষনে আমি আমার খাওয়া শেষ করে ফেলেছি, কাকিমাও মুন্নীকে দোলনায় রেখে নিজের বুকখানা ফের ব্লাউজের মধ্যে ঢুকিয়ে আমার কাছ থেকে থালা নিয়ে ধোবার জন্য চলে যায়।
কাকিমার ওই মাই প্রদর্শন দেখে আমার তোবাড়া ঠাটিয়ে টং। পজামা ফেটে যেন বেরিয়ে আসতে চাইছে, যৌবনদণ্ডখানার এই অবস্থা দেখলে লোকে বলবে কি।
কোনরকমে বাড়াটাকে ঢেকে রেখে বাথ্রুমে ঢুকে পুরো ঘটনাটা মনে করে খিঁচতে থাকি। পুরো ঘটনাটা সত্যি না শুধু আমার মনের ভুল?

About these ads